একটি চলচ্চিত্র সমীক্ষা – মাওসেতুং এর রক্তাক্ত বিপ্লব ……

লিডিং লাইট

(llcobangla.org)

২০০৭ সালে মাওসেতুং এর রক্তাক্ত বিপ্লব ডকুমেন্টারী ফিল্মটি প্রকাশিত হয়। ইহা ‘মাওঃ একটি জীবন’  এবং বি বি সি প্রতিনিধি মি, ফিলিপ সর্ট কর্তৃক প্রকাশিত হয়। এই রক্তাক্ত বিপ্লবকে দু’ভাগে ভাগ করা হয়েছে। ইহার প্রথম ভাগে দেখানো হয়েছে চীনের মহান সাংস্কৃতিক বিপ্লবের সূচনা পর্ব এবং দ্বিতীয় ভাগে দেখানো হয়েছে বিপ্লবের পরবর্তী এক দশক  (১৯৬৬ – ১৯৭৬) পর্যন্ত। দ্বিতীয় ভাগের চার ভাগের তিন ভাগ সময়ই সেই মহান বিপ্লব তুঙ্গে ছিলো । তা হলো ১৯৬৬ সাল থেকে ১৯৬৯ বা ১৯৭১ সাল পর্যন্ত সময় কাল। আর এর বাকী সময়টা হলো ১৯৭১ সাল থেকে ১৯৭৬ সাল যা মাওয়ের জিনাবসানের সময় কাল। রক্তাক্ত বিপ্লব নামক ডকুমেন্টারী ফিল্মটিতে সাম্যবাদের বিরুদ্বে বিষুদগার করন, ক্ষুধার জ্বালায় মানব শিশু ভক্ষন ও মাওসেতুঙ্গকে এক জন নিস্টুর কসাই হিসাবে নানা ভঙ্গিমায় দেখানো হয়েছে। তাতে আরো দেখানো হয়েছে যে, চিনে একটি সংশোধনবাদী ও কমিউনিজম বিরোধী কার্যক্রম চলছে। আমাদের এই সমীক্ষায় ‘রক্তাক্ত বিপ্লব’ নামক ফিল্মটির প্রতিটি বিষয়ইয়”পুংখনোপুংখ আলোচনা করব না বরং আমরা বৃহত্তর…

View original post 1,760 more words

Advertisements

বহুর বিপরীতে দুই

লিডিং লাইট

Angels-on-the-head-of-a-pin1-278x300

(llbangla.org)

সাম্প্রতিক কালে কতিপয় ব্যাক্তির বক্তব্যের জবাবেঃ

“ কতিপয় বিবর্তনবাদি জীব বিজ্ঞানী, যেমন রিচার্ড লিউ অন্তিন এবং স্টিফেন জে গোল্ড, তাঁরা উভয়ই তাদের কার্য ক্রমে দ্বান্দ্বিক বস্তুবাদকে ব্যবহার করার প্রয়াস পেয়েছেন। তাঁরা দ্বান্দ্বিক বস্তুবাদকে জ্ঞান অনুসন্দ্বানের একটি হাতিয়ার হিসাবে গ্রহন করেছিলেন। লিউ অন্তিন তাঁর নিজের অভিজ্ঞতার কথা বলেন এই ভাবেঃ

দ্বান্দ্বিক বস্তুবাদ সত্যিকার ভাবে কোন কার্যকরী পদ্বতী নয়, তা কোন কালে ছিল ও না, তা বাস্তবে কোন সমস্যার সমাধান ও দিতে পারে না। ইহা বরং চিন্তার ক্ষেত্রে উদারতা ও গোড়ামীপনা থেকে মানুষকে বেড় করে আনতে সাহায্য করতে পারে। ইহা আমাদেরকে বলে, ‘ ইতিহাস আমাদেরকে প্রশিক্ষিত করতে পারে। মনে করিয়ে দেয় প্রকৃতিতে দ্বৈততা বিদ্যমান। পরিস্থিতি পরিবেশগত কারনে পরিবর্তিত হতে পারে, তা দরকার হলে একটিকে বিনাশ করে হলে ও অন্যটির বিকাশ ঘটিয়ে থাকে। ইহা মনে করিয়ে দেয় সময় ও স্থান সম্পর্কে সচেতন হবার জন্য। গুনগত পরিবর্তন ঘটলে অজান্তেই পরিস্থিতিতির পরিবর্তন হয়ে যাবে’। সর্বপরি ইহা আমাদেরকে মনে করিয়ে দেয় যে, ‘ পরিবর্তনশীল বাস্তব…

View original post 1,960 more words

প্রথম বিশ্ব প্রসঙ্গে-

লিডিং লাইট

879632_700b

(llbangla.org)

“প্রিয় লিডিং লাইট,

প্রথম বিশ্বের লিডিং লাইটগন কিভাবেগরিবসাধারণ মানুষের সাথে মিলিত হবেন ? যেখানে কোন গরিব সাধারণ মানুষই নাই। স্বাভাবিক ভাবেই উচ্চ শ্রেনীর মানুষেরা শ্রেণী হিসাবে সুবিধা পাবেন । কিন্তু তারা চাইলে তৃতীয় বিশ্বের মানুষের জন্য কি করতে পারেন? যেখানে দরিদ্র মানুষনেই সেখানে সাম্যবাদি হওয়া খুব কঠিন কাজ। তবে আমরা কি করতে পারি?”

মহান লেনিনের এই প্রশ্নটি প্রথম বিশ্বের জন্য প্রযোজ্য। “ আমাদের কি করিতে হইবে?” একজন লিডিং লাইট প্রথম বিশ্বে কি কি করতে পারেন। যেখানে তারা সাম্রাজ্যবাদী শক্তি ও শ্রেণী শত্রুর দ্বারা পরিবেষ্টিত হয়ে আছেন। যারা প্রতিনিয়ত সাম্যবাদের বিরুদ্বে, বিপ্লবের বিরুদ্বে ও সাম্রাজ্যবাদের পক্ষে কাজ করে চলেছেন ? প্রথম বিশ্বে উল্লেখ যোগ্য কোন প্রলেতারিয়েত শ্রেণী নেই। প্রথম বিশ্বের মানুষ আরামদায়ক ও নিরাপদ জীবনযাপন করছেন। তারা শ্রেণী স্বার্থে সাম্রাজ্যবাদের পক্ষে ভুমিকা পালন করছেন। আমাদের দায়িত্ব হলো এই পরিস্থিতিতে করনীয় কি তা নির্নয় করা । প্রথম বিশ্বের জীবন যাত্রা অনেক বদলে গেছে । তা এখন আর ১৯১৭…

View original post 657 more words

প্রথমবিশ্বের মানুষকে গনআন্দোলন বা অন্য কোন লড়াই সংগ্রামের পথে যুক্ত করার উপায় নেই…

লিডিং লাইট

mT1HTfM-7Hv-BlgT5Linxig-1প্রথমবিশ্বের মানুষকে গনআন্দোলন বা অন্য কোন লড়াই সংগ্রামের পথে যুক্ত করার উপায় নেই…
(llbangla.org)
এখন প্রথম বিশ্বে বহু আন্দোলনকারীদের মাঝে এক প্রকার নিঃশ্বিম হতাশা নেমে এসেছে। তারা তাঁদের আদর্শগত সীমাবদ্বতাটা বুঝতে পারছেন। তাঁদের নিকট এখন এটা পরিস্কার যে, প্রথম বিশ্বের জনগন তারা ধনিই হোন বা গরীব, সাদাই হোন বা কালো, শিক্ষিত হোন বা অশিক্ষিত হোন তাতে কিছু যায় আসে না। তারা জীবন যাত্রার ক্ষেত্রে একটি বিশেষ স্তরে অবস্থান করেন। তারা এখন কোন প্রকার বিপ্লবী আন্দোলনে ঝুঁকি নিতে আসবেন না। তারা ঝাপিয়ে পড়ার মত অবস্থানে নেই।  তারা প্রলেতারিয়েতের স্তরে না থেকে অনেকটা মধ্যবিত্তের স্তরে দিনাতিপাত করছেন। তারা এমন কি কোন প্রকার রাজনৈতিক কর্মকান্ডে ও অংশ নিতে নারাজ। এখন তাঁদের সকল আশা ভরষার কেন্দ্র হলো তাঁদের তরুন সমাজ, অভিবাসী ও লুম্পেন শ্রেণী ইত্যাদী। তবে তা ও আবার তত্ত্বীয় পর্যায়ে। প্রায়স যারা লুম্পেনদের নিয়ে স্বপ্নদেখেন বা আশাবাদ ব্যক্ত করেন –সেই মানুষদের সাথে কি তাঁদের যোগাযোগ আছে, তাঁদের জীবন যাত্রার সাথে কি তারা পরিচিত?…

View original post 730 more words

প্রথম বিশ্বে কি কোন সামাজিক ভিত্তি আছে, যারা সেখানে বিপ্লব করতে পারেন ?

লিডিং লাইট

immigrants_mexico

(llbangla.org)

“সুপ্রীয় লিডিং লাইট,

প্রথম বিশ্বে কি কোন সামাজিক ভিত্তি আছে, যারা সেখানে বিপ্লব করতে পারেন ? আমি বুঝতে পারছি যে প্রথম বিশ্বের শ্রমিক শ্রেনী কোন বিপ্লবী চেতনাই ধারন করেন না। কতিপয় তৈরী পোষাক বিক্রেতা দোকানের কর্মচারী, তথাকতি “বেআইনি মেক্সিকোর শ্রমিক, এবং কিছু কারান্দ্বী মানুষেরা কি প্রথম বিশ্বে শোষিত হচ্ছেন? এই সামাজিক অংশ গুলো বা অন্যান্য দল উপদল আছেন কি যারা প্রলেটারিয়েট তৃতীয় বিশ্বের সহযোগী হতে পারেন ? আপনার সময়ে জন্য ধন্যবাদ”।

লিডিং লাইটের জবাবঃ

আপনাকে ধন্যবাদ আমাদেরকে লিখার জন্য।

১৯৬০ থেকে ১৯৭০ সালে আমরা প্রথম বিশ্বে দেখেছি দুনিয়া জুড়ে জাতীয় মুক্তি আন্দোলন ও “প্রলেতারিয়েতদের পক্ষে” দাঁড়াবার ক্ষেত্রে প্রথম বিশ্বের শ্রমিক শ্রেনী অত্যন্ত প্রতিক্রিয়াশীল ভূমিকা পালন করেছেন। তবে কতিপয় বিদ্রোহি তরুন ও কিছু লুম্পেন “প্রলেতারিয়েতের পক্ষে” দাড়িয়েছিলেন। সেটা প্রকাশ্য ও গোপন উভয় সংগঠনের ক্ষেত্রেই আমরা লক্ষ্য করেছি, এমন কি ব্ল্যাক প্যান্থার সংগঠন ও তাই করেছে। পরবর্তীতে প্রথম বিশ্বের নারীরা “প্রলেতারিয়েতের পক্ষে” দাঁড়ানোর চেষ্টা করেন। সেই “প্রলেতারিয়েতের পক্ষে” দাঁড়ানো তত্ত্ব ও…

View original post 346 more words

Just a moment in Africa

The writer's blogk

AfricaJust before a storm there’s that heavy aching feeling in the sky and electric air.  It’s as if the god’s have eaten too much and they have swelled up the sky and filled it with their tautness.

The grasses, trees and shrubs are dead still and almost magnified – waiting – straining and erect for those precious drops of rain to fall upon them so that they too, like the gods, may gorge themselves on welcome water and be able to store up enough supplies to last them through the harder times in between.

I sat just outside to the left of my tent under a tree.  I am watching for all the ‘damp animals’ – the one’s who like to frolic and dance amongst the drops as if giving thanks to those glorious gods who have so very kindly provided life support once again.

Gorgeous George is playing with…

View original post 204 more words

The Last Wish

The Confused Sperm

The person who ruined his life was standing right in front of him, but he could do nothing now. It was too late for action. He was the cause of all his miseries and misfortunes. Filled with anger and sorrow together, he stared at the guy. The pale eyes, thick beard, dirty shirt, everything seemed familiar. He stood expressionless, with a sharp gaze; as if he would strangle him given a chance.

A khaki clad official entered the room through the door on the left.

‘Its time’, he said, ‘We have to leave now.’

Unwillingly he left the room with the officer. Walking through the corridors the officer said, ‘Can I ask you a question?’

‘Sure’. The reply was quick.

‘Why did you wish to see yourself in the mirror as your death wish?’

View original post